রাজনীতিরাজশাহীরাজশাহীর সংবাদ

রাজশাহীতে সময় টিভির সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে মাদক ব্যবসায়ী রাব্বানীর প্রতারণা

স্টাফ রিপোর্টারঃ

আরএমপির মতিহার বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার দপ্তরে নিজেকে সময় চ্যানেলের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে মুছলেকা দিয়ে রেহাই পেয়েছিলেন মতিহার থানার অক্টোর মোড়ের খড়ি ফাটানো মসলেমের বোমাবাজ ছেলে রাব্বানী।

১৭-৮-২০২০ তারিখে ১৬৬ নং স্বারকে এই বোমারু রাব্বানী সহ ৫ জন অভিযুক্ত ব্যক্তিকে হাজির করতে অফিসার ইনচার্জ মতিহার থানাকে নির্দেশদেন মতিহার উপ পুলিশ কমিশনারের কার্যালয় থেকে। ২৩-৮- ২০২০ ইং তারিখে নাশকতা মামলার আসামি রাব্বানী নিজেকে সময় চ্যানেলের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে হাজির হন। সেখানে বোমারু রাব্বানীর একাধিক অনিয়মের বিষয় প্রমানিত হলে মতিহার বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কোন অপরাধ করবে না মর্মে রাব্বানীর মুছলেকা নিয়ে ছাড়েন।

অভিযোগকারী বলেন, সেখানে উপস্থিত কেউ জানতেন না যে এই বোমারু রাব্বানী একজন ভুয়া পরিচয়দান কারি সাংবাদিক। তিনি বলেন, অক্টোর মোড়ের পাশে নব নির্মিত সকল ভবনে চলে এই রাব্বানীর চাঁদাবাজি। অক্টোর মোড় হেরিটেজ বিল্ডিংয়ের সামনের মুন্টুর ছাত্র মেসে চলে এই বোমারু রাব্বানীর জুয়ার আসর। রাতে জুয়ার সাথে মাদক মিশে দুই একজন ভাড়াটিয়া রক্ষিতার আনাগোনা হয় এই মন্টুর মেসে।

নাটোর থেকে আসা তিনটি স্বামী পরিত্যাক্ত এক নারী হয়েছেন এই রাব্বানীর অপকর্মের ঢাল। মতিহার থানা পুলিশের কিছু অসাধু পুলিশ এইসব অপকর্মের সাথে জড়িত থাকার কারণে এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ হয়নি এই জুয়ার আসরের বিরুদ্ধে। নাশকতা মামলার আসামী রাব্বানী কারাহাজতে যাওয়ার দুই একদিন এই জুয়ার আসর বন্ধ থাকলেও পুনরায় এই মুন্টু আবার চালু করেছে জুয়া মাদকের রঙ্গনীলা।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, রাব্বানী কারাহাজত থেকে হুকুম দিয়েছেন যেন কোন সিন্ডিকেটের কার্যক্রম বন্ধ না থাকে। তার পছন্দের দুই একজন পুলিশ সদস্যকে দেখিয়ে দিয়েছেন তারাই সকল কিছু সামাল দিবেন। অপর দিকে, রাজশাহীর সাংবাদিক সমাজ ফুঁসে উঠেছে এই সরকার বিরোধী রাব্বানীর সকল অপকর্ম বন্ধসহ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য।

একাধিক সাংবাদিক সংগঠনের নেতার দাবি, রাব্বানীকে প্রতিহত করাসহ তার অপরাধের সকল শেকড় উপড়ে ফেলা হোক। তবে ২০০২ সালে জনরিরাপত্তা আইনে মামলায় রাব্বানীর ৫ বছরের সাজার বিষয় নিয়ে অনেকেই মুখ খুলতে শুরু করেছেন। প্রশাসনের একটি সুত্র জানায়, তার নামের ভয়ংকর সব মামলার সকল নথি আমাদের হাতে আসার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। অনেক গোপন বিষয় তদন্তের স্বার্থে আড়ালে রাখা হয়েছে। রাসিক মেয়রের একজন আস্থাভাজন জানান, আমাদের মেয়র মহোদয়ের গাড়িতে যে বোমা হামলা করেছিল রাব্বানী, সেটি নিয়ে অন্যকোন ব্যক্তি হলে ওর পুরো পরিবারকে রাজশাহী ছাড়া করত।

তিনি বলেন, রাসিক মেয়র এত পরিচ্ছন্ন যে তার চলাচলে কোন দেহরক্ষী না হলেও চলে। তিনি রাজশাহীর মানুষের আইডল। এমন মানুষের গাড়িতে যে বোমা হামলা করতে পারে, সে কখনো সমাজের হতে পারেনা। এই বোমারুকে সহযোগিতা করছে কিছু জামাত শিবিরের ক্যাডার, তারাও মুখোশ ধারি। তাদের মুখোশ উম্মোচনের অনুরোধ করেন তিনি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button