রাজশাহীর সংবাদ

ঘরের তীরে ঝুঁলছে মেয়ের লাশ, মায়ের আর্তনাদ

বগুড়া প্রতিনিধিঃ

বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় সুমাইয়া খাতুন নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে নিজ ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

সুমাইয়া হলেন উপজেলার খানপুর ইউপির শালফা গ্রামের মনছের ফকিরের মেয়ে। ৫ বছর আগে সুমাইয়ার সঙ্গে শাহাদত হোসেন নামের এক যুবকের বিয়ে হয়। শাহাদত দিনাজপুর জেলার বাসিন্দা। সুমাইয়াকে বিয়ের পর থেকেই তিনি ঘরজামাই হিসেবে তাদের বাড়ীতে থাকতেন। তিনি দিনমজুরের কাজ করেন এবং বর্তমানে কাজের সুবাদে ঢাকায় অবস্থান করছেন।

তারা আরোও বলেন, গতকাল সকালে সুমাইয়ার মা বাড়ির বাহিরে সাংসারিক কাজ করছিলেন। কাজ শেষে বাড়ি ফিরে তিনি দেখেন সুমাইয়ার ঘরের দরজা বন্ধ। তিনি অনেক ডাকাডাকি করেও তার সাড়া পাচ্ছিলেন না। সন্দেহ হলে তিনি দেখেন ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুঁলছেন সুমাইয়া। এই অবস্থা দেখে তিনি চিৎকার করে আশপাশের মানুষদের ডাক দেন। পরে সবাই মিলে সুমাইয়াকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বাবার বাড়িতে থাকার কারণে পারিবারিক কলহের জেরে সুমাইয়া আত্মহত্যা করতে পারেন বলে স্থানীয়রা মনে করছেন। শেরপুর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, কারো কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলাও করা হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button