রাজশাহীরাজশাহীর সংবাদ

চাঁপাইনবাবগঞ্জে নাইট কোচে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট  শিবগঞ্জ সড়কের সোনাজল নামক স্থানে উপজেলা থেকে ছেড়ে আসা নাইট কোচ চাঁপাই ট্রাভেলস, মিন্টু এন্টারপ্রাইজসহ কয়েকটি যানবাহনের গতিরোধ করে পরিবহন ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এটি এ যাবৎকালের বড় ডাকাতির ঘটনা বলে জানিয়েছেন বাসের স্টাফরা।

সোমবার রাত সাড়ে ৭ টার দিকে প্রতিদিনের মত ঢাকা কোচ ভোলাহাট থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ভোলাহাট-শিবগঞ্জ ছেড়ে যায়। এ সময় রাত পৌনে ৮ টার সময় সোনাজল নামক স্থানে ১৫-১৬ জন মুখোশ পরা ডাকাত হাতে হাসুয়া ও লাঠি হাতে হামলা চালায়। এ সময় ডাকাতরা লাঠি দিয়ে কোচের সামনের অংশ ভাঙচুর করে ভিতরে ঢুকে যাত্রীদের পিটিয়ে নগদ অর্থ ও সোনার গয়না ছিনতাই করে। এছাড়া একাধিক ট্রাক, মোটরসাইকেল ও পিকাপে ছিনতাই করেছে।

ঢাকা কোচ জমজম ট্রাভেলসের হেলপার মো. আরিফ জানান, রাত সাড়ে ৭ টার দিকে ঢাকার উদ্দেশ্যে গাড়ী ছেড়ে আসলে পৌনে ৮ টার সময় সোনাজল নামক স্থানে ১৫-১৬ জনের ডাকাত দল মুখোশ পরে হাতে বড় বড় হাসুয়া ও লাঠি হাতে দরজায় এসে আমাকে মারপিট করে গাড়ীর ভিতর ঢুকে যাত্রীদের পিটিয়ে টাকা গয়না ছিনতাই করতে থাকে। তিনি বলেন, নারী যাত্রীদের শ্লীলতা হানির মত ঘটনাও ঘটিয়েছে ডাকাতেরা।

এ গাড়ীর সুপার ভাইজার মো. আলমগীর জানান, আমরা যখন গাড়ী নিয়ে আসি তখন আমাদের সামনে ডাকাত দল কিছু ট্রাক পিকাপ ও মোটরসাইকেলে ডাকাতি চালিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু এ সময় পালিয়ে যাওয়ার কোন সুযোগ ছিল না। গাড়ী দেখে ডাকাত দল দ্রুত হেল্পারকে পিটিয়ে গাড়ীর ভিতর ঢুকে যাত্রীদের পিটিয়ে টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই করে। তিনি বলেন, প্রথমে সাথী এন্টারপ্রাইজ পরে আমাদের জমজম ও পরে চাঁপাই ট্রাভেলসে ডাকাতি করে।

অপর একজন ইমামনগর গ্রামের নারী গার্মেন্টস শ্রমিক মোসা. আশা বলেন, আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন নিয়ে গেছে।

এদিকে ডাকাতের পিটুনিতে আহত আম বহনকারী ট্রাক ড্রাইভার মো. কাঞ্চন জানান, আমি আম নিয়ে ঢাকা যাচ্ছিলাম। রাস্তায় ডাকাতেরা আমাকে বেধড়ক পিটিয়ে নগদ ১০ হাজার টাকা ও ৩ টি মোবাইল ফোন ছিনতাই করেছে ডাকাতেরা। আমার মাথায়, হাতে পিঠে ডাকাতেরা বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছে।

ভোলাহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্র জানায়, সড়কে ডাকাতের ঘটনায় ৫ জন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। আহতরা উপজেলার খালেআলমপুর গ্রামের সাথী এন্টারপ্রাইজের চালক মো. মানোয়ার, যাত্রী রাজিয়া, বীরশ্বরপুরে ওবাইদুল, মো. রবিউল ও ট্রাক ড্রাইভার মো. কাঞ্চন। এছাড়া আরো অনেকে বাড়ীতে গিয়ে চিকিৎসা নেয়ার খবর জানা গেছে।

ভোলাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহবুবুর রহমান জানান, বাস ডাকাতির খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে আমি উপস্থিত হই। ডাকাতির সাথে যারা জড়িত দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button