রাজশাহীরাজশাহীর সংবাদ

রাজশাহীতে কিশোর গ্যাং এর আবির্ভাব, মাদক ব্যবসা ও বাড়ি ভাংচুর

রাজশাহীর ভদ্রা এলাকায় আবির্ভাব হয়েছে কিশোর গ্যাং, ঘটেছে অপ্রীতিকর ঘটনা। পরপর তিন রাতে মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় আহত হয়েছে ৬ জন এবং বাড়ি, বৈদ্যুতিক মিটার ভাংচুর হয়েছে ৫এর অধিক বলে জানা গেছে। রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের অভিযান চলমান, তারপরও মাদকদ্রব্যের ব্যবসা রমরমা চলছে। রাজশাহী শহরের ভদ্রা এলাকার জামালপুরে মাদকদ্রব্যকে পুঁজি করে কিশোর গ্যাং চালিয়ে যাচ্ছে ব্যবসা ও হামলা।

স্থানীয়দের মতে, অস্থায়ী ভাবে রাজশাহী ভদ্রার জামালপুরে সরকারী জমিতে বস্তি অনেক। যেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা অজ্ঞাত অনেক পরিবারের বসবাস। যাদের মধ্যে জানা গেছে বিএনপি জামায়াত থেকে উঠে আসা মানুষের কথা এবং উঠতি বয়সের যুবকদের নিয়ে গঠিত কিশোর গ্যাং। বস্তিতে বসবাসরত মোসাঃ সাবরিনা ৪০ কিশোর গ্যাংয়ের ও মাদকদ্রব্যের ব্যবসায়ীদের অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের ফোন দিলে ১৮ আগস্ট সাংবাদিকদের অনুসন্ধানী টীম উপস্থিত হয়। রাজশাহীর আওয়ামী লীগের ২৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোঃ মোখলেছুর রহমান খলিল বলেন, আমার এই সমাজ এমনটি ছিল না। যারা মাদকদ্রব্যের ব্যবসা করছে তারাই জয় বাংলার শ্লোগান দিয়ে ঘর বাড়ি ও বৈদ্যুতিক মিটার ভাংচুর করছে। আসলে এরা কি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ অনুসরণ করছে? আমরা আওয়ামী লীগ কর্মী আমরা এখন এক প্রকারের অবহেলায়।

জানা গেছে বাবলুর ছেলে মিঠু নামের একজন সেই দলের নেতা। এ দলের মধ্যে অনেকেই এলাকার বাহিরের ছেলে। তারা ৪ বছরের বেশি সময় ধরে মাদকের ব্যবসা করে আসছে এবং ছোট ছোট ছেলেদের নিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে।

আলহাজ্ব মোঃ একরামুল হক নান্নু ৬০ জানান, আরএমপি কমিশনার বলেন অপরাধ জিরো টলারেন্স হবে। কিন্তু আমাদের মহল্লায় অপরাধের ইয়াত্তা নেই। সুখ শান্তি নষ্ট করেছে এই ছেলেগুলো। এছাড়াও ২৬ নং ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক মোঃ মতিউর রহমান মতি মাদক ব্যবসা ও মাদকের বিরোধীতা করায় তিন তিনবার মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছে। ঐ বাহিনী তাকে আক্রমণ করেছিল । সরেজমিনে গিয়ে পূর্বের ঘটনা থেকে উদঘাটন করা হয়েছে। জীবন বাঁচাতে মোঃ মতিউর রহমান মতি স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক থেকে সরে আসেন এবং সাংবাদিকতা শুরু করেন।

গোপন সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী মহানগরীর চন্দ্রিমা থানাধীন ভদ্রা জামালপুর মহল্লায় জামালপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে সরকারি রেলের জায়গায় এলাকার কতিপয় বখাটে নেশাখোর যুবক ১.মোঃ আশিক ২৩ পিতাঃ মোঃ রুবেল, ২.মোহাম্মদ অপু ২৭, পিতা-মোঃ রুবেল, ৩.সোহাগ, পিতা-মোহাম্মদ আইনাল আলী, ৪. মোঃ মিঠু ৫. মোঃ রাব্বিসহ আরও অনেকে একটি টিনের ঘর নির্মাণ করে সেখানে মাদক ব্যবসা সহ হৈচৈ চিল্লাচিল্লি করে। অশ্লীল গান বাজনা করে থাকে। তারা ঐ ঘরকে আওয়ামী লীগের দলীয় অফিস নাম দিয়ে এই অবৈধ কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। কেউ কিছু বললেই তার উপর হামলা করে আসছে ।

গত চার পাঁচদিন থেকে বেশি উৎপাত করায় এলাকাবাসী এর প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে গত ১৫ আগস্ট রাত ৮:৪০ মিনিটে ভদ্রা,জামালপুর অলির মাজার গেট সংলগ্ন মোঃ লাহাব আলী মিঠুন ৩৫, পিতা মোঃ আবেদীন, জামালপুর, থানা চন্দ্রিমা রাজশাহী মহানগর নামে একজন প্রতিবাদীকে ঐ বিবাদীরা নানা রকম দেশীয় অস্ত্র সহকারে হামলা চালিয়ে তাকে আহত করে ৷ গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে মোঃ লাহাব আলী মিঠুন চন্দ্রিমা থানায় তাদের বিরুদ্ধে গত ১৫ আগস্ট একটি অভিযোগ দায়ের করে ৷

থানায় অভিযোগ দায়ের করার কারণে প্রতিশোধ নিতে উক্ত বিবাদীগণ সঙ্গীয় আরো ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী সহ গতকাল ১৭ আগস্ট রাত ৮:১০ মিনিটে রাজশাহী মহানগরীর ভদ্রা জামালপুর অলির মাজার গেট সংলগ্ন এলাকায় এক তান্ডব চালিয়ে বিভিন্ন বাড়িঘরে হামলা করে দরজা জানালা ও বৈদ্যুতিক মিটার ভাঙচুর করে। তারা যে কোনো সময় আবার হামলা করবে বলে হুমকি দিয়েছে। তাদের এই কর্মকান্ডের জন্য এলাকায় বেশ উত্তেজনা বিরাজ করছে।

গোপন অনুসন্ধানে জানা যায়, বিবাদীগণ মাদক সেবন ও বিক্রয় করে। এদের বিরদ্ধে প্রসাশনের উপযুক্ত ব্যাবস্থা জরুরী।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button